বুধবার, অক্টোবর ৫, ২০২২

উত্তরায় ক্রেন দুর্ঘটনা- মামলা দায়ের, নির্মাণকাজ বন্ধ

সোমবার উত্তরায় ক্রেন দুর্ঘটনায় পাঁচজন নিহত হওয়ার ঘটনায় বাস র‌্যাপিড ট্রানজিটের চীনা ঠিকাদারের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে এবং এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজ বন্ধ রয়েছে।

নিহতের ভাই ফাহিমা আক্তার ও ঝর্ণা আক্তার বাদী হয়ে মধ্যরাতে উত্তরা পশ্চিম থানায় মামলাটি করেন।

উত্তরা পশ্চিম থানার ওসি মোহাম্মদ মহসিন ঢাকা ট্রিবিউনকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। অবহেলার অভিযোগ এনে চায়না গেঝুবা গ্রুপ কর্পোরেশনের (সিজিজিসি) বিরুদ্ধে মামলা করেন আফরান মণ্ডল বাবু।

মামলায় ক্রেন অপারেটরসহ অজ্ঞাতনামা বেশ কয়েকজনকে আসামি করা হয়েছে। এদিকে ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন বিআরটি পরিচালক শফিকুল ইসলাম।

নির্মাণকাজ বন্ধ রেখেছেন ডিএনসিসি মেয়র
অন্যদিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে বিআরটি (বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট)-৩ এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণকাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বিআরটি প্রকল্প কমপ্লায়েন্স সংক্রান্ত বৈঠকের পর এ বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

তিনি বলেন, জননিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পদক্ষেপ না নিলে ঢাকা শহরে কোনো প্রকল্পের নির্মাণকাজ চলতে দেওয়া হবে না।

“যে কোনো নির্মাণ কাজে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকতে হবে এবং সবার আগে জননিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এটি কেবল বিআরটি (বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট) প্রকল্পের কথা নয়, আমরা জননিরাপত্তা নিশ্চিত না করে কোনও প্রকল্পের অনুমতি দেব না,” তিনি বলেছিলেন।

তিনি আরও বলেন, “বিআরটি কর্তৃপক্ষ ব্যস্ত সড়ক অবরোধ করার পর ভারী গার্ডার উঠানো উচিত ছিল। ক্রেন ব্যবহার করার সময় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উচিত ছিল উদ্ধার অভিযানের জন্য আরেকটি ক্রেন স্ট্যান্ডবাই রাখা এবং একটি অ্যাম্বুলেন্স। কিন্তু বিআরটি এসব নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হয়েছে।

“বিআরটি কর্তৃপক্ষের উচিত ছিল ট্রাফিক পুলিশকে জানানো এবং গার্ডার তোলার সময় বিকল্প রাস্তা ব্যবহার করার জন্য তাদের সাহায্য চাওয়া কিন্তু আমি জানতে পেরেছি যে তারা ট্রাফিক পুলিশের সাথে যোগাযোগ করেনি এবং সবকিছু বিআরটির অবহেলার কারণে ঘটেছে,” তিনি যোগ করেন।

সোমবার উত্তরায় বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) প্রকল্পের কাজ চলাকালীন ক্রেন থেকে ১৫০ টন ওজনের গার্ডার তাদের গাড়িতে পড়ে গেলে একই পরিবারের শিশুসহ অন্তত পাঁচজন নিহত হয়েছেন।

নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, নবদম্পতি হৃদয় ও রিয়া বিয়ের সংবর্ধনা শেষে গাড়িটি দক্ষিণখান থেকে আশুলিয়া যাচ্ছিল। শনিবার তাদের বিয়ে হয়।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
3,516FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -spot_img

Latest Articles