সোমবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১

টিকা কিনতে ৭ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় বাংলাদেশকে ৮২ কোটি ডলার ঋণ দিতে চায় আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল সংস্থা। দেশীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় সাত হাজার কোটি টাকা। গত সপ্তাহে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের সঙ্গে এক ভার্চুয়ালি বৈঠকে এ পরিমাণ ঋণ দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছে প্রভাবশালী সংস্থাটি।

এ ব্যাপারে অর্থ মন্ত্রণালয়ের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা যে পরিমাণ ভ্যাকসিন বিভিন্ন উৎস থেকে সংগ্রহ করেছি, সেটি বাদ দিলেও আরো ২৫ কোটি কিনতে হবে। আইএমএফের সঙ্গে আলোচনা চলছে। সংস্থাটি ঋণ দিতে আগ্রহী, কিন্তু শর্ত নিয়ে এখনো একমত হওয়া যায়নি।’

সূত্র মতে, এ তহবিলে উন্নয়ন সহযোগী বিভিন্ন সংস্থার কাছ থেকে চলতি অর্থবছর ৩০ হাজার কোটি টাকা পাওয়া যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। এরই মধ্যে সরকারের আহ্বানে সাড়া দিয়েছে বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক এডিবি, জাপান আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা, ইউরোপিয়ান ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক, এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকের মতো সংস্থাগুলো।

করোনাভাইরাসের টিকা কিনতে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি ঋণ অনুমোদন করেছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক। সংস্থাটি করোনাপ্রতিরোধী ভ্যাকসিন কিনতে ৯৪ কোটি ডলার ঋণ সহায়তা অনুমোদন করেছে। দেশীয় মুদ্রায় যার পরিমাণ সাত হাজার ৯৪৫ কোটি টাকা। আইএমএফের ঋণ পাওয়া গেলে সেটি এডিবির পরের স্থান দখল করে নেবে। অন্যান্য ঋণদাতা সংস্থার মতোই আইএমএফের ঋণ কর্মসূচিতে সুদহার সাধারণত কম হয়, কিন্তু এতে থাকে নানা শর্তের বেড়াজাল। এবারও বাংলাদেশকে ভ্যাকসিন কিনতে যে ঋণ সহায়তা সংস্থাটি দিতে চায় তাতে নানা শর্ত আরোপ করতে চায় আইএমএফ।

গত সপ্তাহে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত বৈঠকে আইএমএফের পক্ষ থেকে রাজস্ব আদায় বাড়ানোর রূপরেখা চাওয়া হয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে। খেলাপি ঋণ বাড়া নিয়েও বৈঠকে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। বলা হয়েছে, খেলাপি ঋণ মোকাবেলায় সরকার ভবিষ্যতে যেসব পদক্ষেপ নেবে তা জানাতে হবে সংস্থাটিকে। সরকারি ব্যাংকের ওপর সরকারের কর্তৃত্ব কমাতে পদক্ষেপ চাওয়া হয়েছে। গুলো বাদ দিয়েও অর্থনীতির নানা দিক সংস্কার, ভ্যাট আইন পুরোপুরি বাস্তবায়নসহ বাজেটের নানা বিষয়ে ঋণ দাতা সংস্থাটি শর্ত আরোপ করতে চায়। এর আগে বর্ধিত ঋণ সহায়তা কর্মসূচিতেও বিভিন্ন শর্ত আরোপ করেছিল আইএমএফ।

এসব শর্ত পূরণ করলেই ভ্যাকসিন কিনতে সাত হাজার কোটি টাকা পাওয়া যাবে। তবে ঋণের অনেক শর্তের ব্যাপারে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আপত্তি রয়েছে।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles