সোমবার, ডিসেম্বর ৬, ২০২১

স্কুলশিক্ষকে দেখে চটলেন সবজি বিক্রেতা

হঠাৎই এক লোকের ওপর চটে গেলেন এক সবজি বিক্রেতা।দোকানি টাকা চাইছেন, আর লোকটা বারবার সময় চাইছেন। দোকানির সাফ কথা, বাকির টাকা না দিলে আর কিছু বিক্রি করবেন না তিনি। লোকটি বলছেন, এই তো কয়েক দিন পরেই তিনি সব টাকা দিয়ে দেবেন। কিন্তু দোকানি শুনতে নারাজ। পরে আশপাশের দোকানিদের অনুরোধে মন গলল ওই দোকানির। বাকিতে কিছু সবজি নিলেন লোকটি।

পাশে দাঁড়িয়ে বিষয়টি দেখার পর পিছু নিলাম লোকটির। আলাপে আলাপে জানা গেল, ১৯৯৪ সালে স্নাতক পাসের পর ২০১৩ সালে এসে এলএলবি পাসও করেছেন। স্নাতক পাসের পরপরই বিয়ে করেছেন। যখন বিয়ে করে সংসার শুরু করেন, তখন তিনি ছিলেন বেকার। নানা জায়গায় ঘুরেও কোনো চাকরি পাননি। বাধ্য হয়ে অল্প কিছু বেতনে ১৯৯৯ সালে গাইবান্ধা শহরের ল কলেজ কিন্ডারগার্টেনে শিক্ষকতা শুরু করেন। এখন তিনি সেই কিন্ডারগার্টেনের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ।

শাহ আলমের একমাত্র মেয়ে সোনিয়া সুলতানা গাইবান্ধা সরকারি মহিলা কলেজে দ্বিতীয় বর্ষে পড়ে। কিন্ডারগার্টেন থেকে মাসে বেতন পান মাত্র সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা। পৈতৃক বাড়িতে থাকেন বলে বাসাভাড়া লাগে না। শাহ আলমের তিন ভাই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। প্রতি মাসে নিয়মিতভাবে কিছু অর্থসহায়তা দেন তাঁরা।কিন্তু করোনা এসে টানাটানির সংসারে দুর্দশা নামিয়ে এনেছে। গত বছরের মার্চ থেকে শাহ আলমের কিন্ডারগার্টেনটি বন্ধ। তখন থেকে কোনো বেতন-ভাতা পাচ্ছেন না।

আলাপে আলাপে শাহ আলম আরও জানান, অনেক বছর ধরে যখনই দরকার হয়েছে ভাইদের শরণাপন্ন হয়েছেন। তাঁরাও সামর্থ্য অনুযায়ী সব সময় সহায়তা দিয়েছেন। কিন্তু এখন ভাইদেরও ব্যবসা বন্ধ, তাঁদের কাছ থেকেও আপাতত কোনো সহায়তা মিলছে না। এক বছর ধরে এ অবস্থা চলছে। কত দিন ভাইবোন বা আত্মীয়স্বজনের কাছ থেকে ধার নিয়ে চলা যায়?

এদিকে চাল-ডাল, সবজি আর ওষুধের দোকানে সব মিলিয়ে শাহ আলমের বাকি পড়েছে প্রায় এক লাখ টাকা। এক বছর ধরে বাকিতে পণ্য দিতে দিতে এখন দোকানদারও শাহ আলমের ওপর বিরক্ত। তাই তিনি দোকানে গেলেই তাঁর সঙ্গে চড়া গলায় কথা বলেন দোকানিরা।বিরক্ত হলেও একজন শিক্ষকের প্রতি সহানুভূতি দেখান কেউ কেউ।

শিক্ষক শাহ আলম বলেন, বেতন না পেয়ে আমার প্রতিষ্ঠানের চারজন শিক্ষক চাকরি ছেড়ে দিয়েছেন। কিন্তু আমি অভাবের কথা কাউকে বলতেও পারছি না লজ্জায়। স্কুলটির জন্য কিছু সহায়তার জন্য জেলা প্রশাসকের কাছেও গিয়েছিলাম। কিন্তু তিনি জানালেন, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে সহায়তা দেওয়ার সুযোগ নেই।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles