মঙ্গলবার, জুন ১৫, ২০২১

অনুমোদনের অপেক্ষায় কিউরভ্যাক

জার্মানিতে টিকা কার্যক্রম শুরুর পর থেকে আগের তুলনায় কমেছে করোনা সংক্রমণ। তবে যুক্তরাজ্য এবং দক্ষিণ আফ্রিকার করোনার নতুন ধরন নিয়ে শঙ্কায় জার্মান সরকার। গত বছর করোনার টিকা কার্যক্রম শুরুর পর থেকেই জার্মানিতে পরিস্থিতি উন্নতি লক্ষণীয়। ইতোমধ্যে সংক্রমণ এবং মৃতের সংখ্যা অর্ধেকে কমে এসেছে। টিকা প্রদান অব্যাহত রেখেছে জার্মান স্বাস্থ্য বিভাগ। এরই মধ্যে ২৭ লাখ মানুষকে করোনার প্রথম ডোজের টিকা দেওয়া হয়েছে। আর ১৪ লাখ মানুষকে দ্বিতীয় ডোজের টিকা দেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে প্রতিবেশী রাষ্ট্র চেক রিপাবলিক এবং অস্ট্রিয়া থেকে নতুন করোনা ছড়িয়ে পড়ায় সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ করেছে দেশটির প্রশাসন। তবে যুক্তরাজ্য এবং দক্ষিণ আফ্রিকার করোনার নতুন ধরন নিয়ে শঙ্কা বাড়াচ্ছে জার্মানের বিভিন্ন জায়গাতে ছড়িয়ে যাওয়ায়। তবে শঙ্কা আরো বাড়াচ্ছে জার্মানের পাশের দেশ চেক রিপাবলিক ও অস্ট্রিয়াতে এ নতুন ধরনের ভাইরাসে। এ জন্য দু’দেশের সীমান্তে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। কোনো রকম নেগেটিভ সার্টিফিকেট ছাড়া দেশটিতে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না। এদিকে টিকার সংকটে ইইউর মেডিসিন এজেন্সির অনুমোদনের অপেক্ষায় তৃতীয় ধাপে থাকা জার্মানির কিউরভ্যাক। তৃতীয় ধাপে থাকা জার্মানির কিউরভ্যাক পরীক্ষা নিরীক্ষায় সফলভাবে এগিয়ে গেছে। জার্মানি এবং অন্যান্য দেশসহ ল্যাটিন আমেরিকার প্রায় ৩৫ হাজার স্বেচ্ছাসেবীর শরীরে করোনার এটিকা পরীক্ষা করা হয়েছে। এটি যুক্তরাজ্য ও দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য নতুন ধরনের করোনার জন্য দারুণ কার্যকর। এক জার্মান নাগরিক বলেন, অন্যদের মতো আমিও খুশি। করোনার আরো একটি কার্যকরী টিকা অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। জার্মান চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের মতো আমিও আশাবাদী, কিউরভ্যাকের এই টিকা করোনার নতুন ধরনকে রুখে দেবে। একই সঙ্গে টিকার সংকট কেটে যাবে বলেও আমি আশাবাদী।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles