নিজ দেশের মানুষের ওপর অস্ত্র ব্যবহার ‘জাতীয় লজ্জা’

মিয়ানমারের সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে বিশ্ব সম্প্রদায়ের চাপ দিন দিন বাড়ছে। দেশটির বিরুদ্ধে নতুন করে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। আর বিক্ষোভকারীদের ওপর গুলি চালানোর ঘটনার নিন্দা করে সিঙ্গাপুর বলেছে, নিজ দেশের মানুষের ওপর সশস্ত্র বাহিনী নিজেদের অস্ত্র ব্যবহার করেছে। এটা ‘জাতীয় লজ্জার’ ঘটনা। বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, সবশেষ পদক্ষেপ হিসেবে মিয়ানমারের জান্তা সরকারের পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং সেনাবাহিনীর নির্দিষ্ট কিছু ব্যবসা-বাণিজ্যের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ওয়াশিংটন। মিয়ানমারে সামরিক রসদ রপ্তানির ক্ষেত্রেও কড়াকড়ি আরোপ করেছে জো বাইডেনের প্রশাসন। গত ১ ফেব্রুয়ারি রক্তপাতহীন অভ্যুত্থান ঘটিয়ে ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেত্রী অং সান সু চি, প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট ও দলের শীর্ষ নেতাদের গ্রেপ্তার করে সেনাবাহিনী। জরুরি অবস্থা জারি করে দেশটির সর্বময় ক্ষমতা কুক্ষিগত করেন সেনাপ্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং। এরপর থেকে টানা বিক্ষোভ করে আসছেন মিয়ানমারের জনগণ। দেশজুড়ে বেশ কয়েকটি শহরে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভে পুলিশে কাঁদানে গ্যাস ও গুলি চালায়। জাতিসংঘ জানিয়েছে, অভ্যুত্থানের পর থেকে এখন পর্যন্ত ৫৪ জন বিক্ষোভকারী নিহত হয়েছেন। গ্রেপ্তার করা হয়েছে ১ হাজার ৭০০ জনের বেশি লোককে, যাঁদের মধ্যে আছেন ২৯ জন সাংবাদিকও। গত মাসে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মিয়ানমারের প্রতিরক্ষামন্ত্রীসহ সেনা অভ্যুত্থানে নেতৃত্ব দেওয়া সামরিক কর্মকর্তা এবং সেনাবাহিনী সংশ্লিষ্ট তিনটি প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দেন। বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে মার্কিন বাণিজ্য মন্ত্রণালয় জানায়, অনেক পণ্যের সুবিধা পেতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীকে অনুমতি দেবে না যুক্তরাষ্ট্র। অভ্যুত্থানের জন্য দায়ী ব্যক্তি ও তাদের অপরাধের বিরুদ্ধে মার্কিন সরকারের ব্যবস্থা গ্রহণ অব্যাহত থাকবে। যুক্তরাষ্ট্র মিয়ানমারের যে দুটি প্রতিষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সেগুলো হলো, মিয়ানমার ইকোনমিক করপোরেশন এবং মিয়ানমার ইকোনমিক হোল্ডিংস লিমিটেড। এ দুটি প্রতিষ্ঠান এবং তাদের সহযোগী সংস্থাগুলোর মাধ্যমে মিয়ানমারের অর্থনীতি নিয়ন্ত্রণ করে থাকে দেশটির সেনাবাহিনী। এসব প্রতিষ্ঠানের অধীনে আছে বিয়ার, সিগারেট থেকে শুরু করে টেলিকম, টায়ার, খনি ও রিয়েল স্টেটের ব্যবসা। রয়টার্স জানায়, মিয়ানমারের বিক্ষোভকারীদের ওপর নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে ব্যাপক হতাহতের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে সিঙ্গাপুর। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভিভিয়ান বালাকৃষ্ণ আজ শুক্রবার পার্লামেন্টে নিজ দেশের মানুষের ওপর সশস্ত্র বাহিনী নিজেদের অস্ত্র ব্যবহার করেছে। এটা ‘জাতীয় লজ্জা’। তিনি সহিংসতা বন্ধ করে সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানের দিকে অগ্রসর হওয়ার জন্য মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

21,933FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles