বুধবার, জুন ২৩, ২০২১

করোনার কারণে পোশাক শ্রমিকদের ঝুঁকি বেড়েছে

আজ বৃহস্পতিবার ”দি উইকেস্ট লিংক ইন গ্লোবাল সাপ্লাই চেইন: হাউ দি প্যানডেমিক ইজ এফেক্টিং বাংলাদেশ গামেন্টস ওয়ার্কার” শীর্ষক গবেষণার আনুষ্ঠানিক ভার্চুয়াল উদ্বোধন করেন ইউএনডিপি’র রেসিডেন্ট রিপ্রেজেন্টিভ সুদীপ্ত মুখাজি। ইউএনডিপি ও যুক্তরাষ্ট্রের  ক্যালিফোর্নিয়া ইউনিভার্সিটি’র চৌধুরী সেন্টার ফর বাংলাদেশ স্টাডিজ এবং  ইনস্টিটিউট ফর হিউম্যান রাইটস এণ্ড বিজনেস পরিচালিত এক গবেষণায় করোনাকালীন সময়ে গামেন্টস কর্মী  বিশেষ করে নারী  কর্মীদের বিভিন্ন ঝুকির চিত্র উঠে এসেছে। গবেষণায় দেখা যায় ২০২০ সালে করোনাকালে ৩৫ ভাগ কর্মীদের বেতন কমে যায়। বাজারে চাহিদা কমে যাওয়া, করোনার কারণে বাজার বন্ধ হয়ে যাওয়া, শীপমন্টে দেরী হওয়া, সময়মতো পণ্যের মূল্য না পাওয়াসহ বিবিধ কারণে গামেন্টস খাত ব্যপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয় এবং গামের্ন্টস কর্মীদের ঝুকি বেড়ে যায়। অনেক ব্যবসা হয় বন্ধ হয়ে যায় অথবা সংকুচিত হয়। ফলশ্রুতিতে অনেক নারী কর্মীর চাকরি চলে যাওয়ার পাশাপাশি অনেক কর্মীর উপার্জন কমে গেছে। বাধ্য হয়ে কর্মীরা দেনায় জড়িয়ে পড়েছেন বলেও গবেষণায় উঠে এসেছে। সুইডিশ সরকারের অর্থায়নে পরিচালিত উক্ত গবেষণায় পূর্বের অভিজ্ঞতা বিবেচনায় নিয়ে বর্তমান কোভিড পরিস্থিতি মোকাবেলায় কাজ করার আহবান জানান গবেষকরা। গবেষণার অংশ হিসেবে অক্টোবর ২০২০ এবং ফেব্রুয়ারি ২০২১ সালে আন্তজাতিক ক্রেতা,  বাংলাদেশী সরবরাহকারি, সিভিল সোসাইটির প্রতিনিধি এবং বাংলাদেশের গামেন্টস কর্মীদের বিশদ সাক্ষাতকার নেওয়া হয়। করোনার প্রকোপ বৃদ্ধির ফলে গামেন্টস কর্মীদের ঝুকি হ্রাসের জন্য আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিতের পাশাপাশি প্রয়োজনীয় বিধি-বিধান প্রণয়নের সুপারিশ করা হয়েছে গবেষণায়। এতে আন্তজাতিক ক্রেতা,  বাংলাদেশী সরবরাহকারির পাশাপাশি বাংলাদেশের গামেন্টস কর্মীরাও উপকৃত হবেন বলে গবেষকদের অভিমত । এ উপলক্ষ্যে আয়োজিত ভার্চুয়াল আলোচনায় শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব কে এম আব্দুস সালাম চলমান করোনাকালীন বিধিনিষেধের মধ্যে সরকার কতৃক গামেন্টস কর্মীদের জন্য নেয়া গৃহীত উদ্যোগের বিবরণ দেয়ার পাশাপাশি কর্মক্ষেত্রে কর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও উন্নয়নে কাজ করে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। ব্রাণ্ডের ইমেজ রক্ষায় গার্মেন্টস কর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা তথা অকুপেশনাল   হেলথ এণড সেফটি’র বিশেষ গুরূত্বারোপ করেন। জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের পূর্ণকালীন সদস্য ডক্টর কামাল উদ্দিন আহমদ ও বিজেএমইএ’র সভাপতি ফারূক হাসান বিশেষ অতিথি হিসেবে ভার্চুয়াল সেমিনারে বক্তব্য রাখেন। বিজেএমইএ’র সভাপতি ফারূক হাসান বাংলাদেশ সরকারের সহায়তায় গার্মেন্টস কর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগ যেমন আইসোলেশন সেন্টার, পিসিআর ল্যাব প্রতিষ্ঠার কথা তুলে ধরে করোনা পরিস্থিতিতেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে কারখানা চালুর বিভিন্ন দিক আলোচনা করেন। তিনি আরএমজি সাস্টইেনবিলিটিি সেন্টার প্রতিষ্ঠার প্রেক্ষাপট তুলে ধরে কোভিড পরিস্থিতি মোকাবেলায় গার্মেন্টস কর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় এসোশিয়েসনের প্রতিশ্রুতি পূর্নব্যক্ত করেন। ভার্চুয়াল আলোচনায় স্বাগত বক্তব্য দেন ইউএনডিপি’র রেসিডেন্ট রিপ্রেজেন্টিভ সুদীপ্ত মুখার্জি। তিনি স্থায়িত্বশীল উন্নয়ন নিশ্চিতে ব্যবসায়ী সম্প্রদায়সহ সকলকে আগামীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় একসাথে কাজ করার আহবান জানান।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles