বুধবার, জুলাই ২৮, ২০২১

৯২ রানে ৬ উইকেট নেওয়া মিরাজের গড় গতি ছিল ঘণ্টায় ৭৮.৬ কিলোমিটার

মিরাজ বলে একটু বাতাস দে’—মেহেদী হাসান মিরাজকে একটু আস্তে বল করার জন্য উইকেটকিপার লিটন দাস যেন আকুতি করেই বললেন কথাটা। কাল শেষ বিকেলে শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতে মিরাজ নতুন বলটা হাতে পেয়েই যেন মিডিয়াম পেসারের গতিতে বল করতে শুরু করলেন। ধারাভাষ্যকার আমির সোহেল মিরাজের ঘণ্টায় ৯০ কিলোমিটার ছাড়ানো গতি দেখে অবাক।

শ্রীলঙ্কান তরুণ স্পিনার প্রভিন জয়াবিক্রমার বোলিং দেখার পর মিরাজের বোলিং দেখলে যেকেউই হতাশ হবেন। ৯২ রানে ৬ উইকেট নেওয়া এই তরুণ স্পিনারের গড় গতি ছিল ঘণ্টায় ৭৮.৬ কিলোমিটার। বল হাওয়ায় ভাসিয়ে ভাসিয়ে উইকেট থেকে বিশাল বিশাল বাঁক আদায় করে নিয়েছেন এই লঙ্কান তরুণ, অথচ তিনি খেলছেন তাঁর প্রথম টেস্ট!

বল বাঁক খাওয়ানোর সুযোগ করে দিয়েছেন আরেক স্পিনার রমেশ মেন্ডিসও। ঘণ্টায় ৮৩.২ কিলোমিটার বেগে বল করেছেন তিনি।

ধীরগতিতে বল করে লঙ্কান স্পিনাররা বাংলাদেশের প্রথম ইনিংসে সবচেয়ে বেশি বাঁক আদায় করে নিয়েছেন। বাংলাদেশ ইনিংসের সময় লঙ্কান স্পিনাররা গড়ে ৪.৭ ডিগ্রি বাঁক পেয়েছেন। অথচ বাংলাদেশের দুই স্পিনার শ্রীলঙ্কার প্রথম ইনিংসে বাঁক পেয়েছেন মাত্র ২.৯ ডিগ্রি।

কিন্তু বাংলাদেশ যে সাহায্য পাওয়ার মতো বোলিংও করেনি। প্রথম ইনিংসে তাইজুলের গড় গতি ছিল ঘণ্টায় ৮৫.৭ কিলোমিটার, আর মেহেদী হাসান মিরাজের ৮৩.৯ কিলোমিটার। দুজনের গড় গতি ছিল ঘণ্টায় ৮৪.৭। উইকেট থেকে কিছু আদায় করে নেওয়ার জন্য যে ধীরগতির বোলিং করা দরকার ছিল, সেটা করেনি বাংলাদেশি স্পিনাররা।

বাংলাদেশেরও সুযোগ ছিল লঙ্কান বোলিং দেখে এই উইকেটের আদর্শ গতি আঁচ করার। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসের এখন পর্যন্ত তা দেখা যায়নি। বাংলাদেশ ৩০ ওভারের বেশি বোলিং করে ফেলেছে। স্পিনারদের গড় গতি এখন পর্যন্ত ঘণ্টায় ৮৪.২ কিলোমিটার। গতি বেশি হওয়াতে বাঁকও কম পাচ্ছে বাংলাদেশ। যেখানে টেস্টের তৃতীয় দিন লঙ্কানরা বাঁক পেয়েছে গড়ে ৪.৭ ডিগ্রি করে, সেখানে চতুর্থ দিনে তাইজুলরা পাচ্ছে গড়ে ৩.৯ ডিগ্রি করে।

কে এনে দিয়েছে দুটি উইকেট।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles