শনিবার, জুলাই ২৪, ২০২১

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় মেধাসম্পদ বঙ্গবন্ধু শিল্পমন্ত্রী

ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য হিসেবে আগেই স্বীকৃতি মিলেলিছ ঢাকাই মসলিন, রাজশাহী সিল্ক, কালিজিরা চাল, দিনাজপুরের কাটারিভোগ, বিজয়পুরের সাদামাটি এবং সতরঞ্জির। এই ছয় পণ্যের একক মালিকানা এখন বাংলাদেশের। বৃহস্পতিবার এই ছয় পণ্যের জিআই সনদ আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে দেওয়া হলো ৫ প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধির হাতে। এ দিন রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে সনদ তুলে দেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে ঢাকাই মসলিনের সনদ নেন বাংলাদেশ তাঁত বোর্ডের চেয়ারম্যান মো: শাহ আলম। তাছাড়া রংপুরের শতরঞ্জি বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশশের চেয়ারম্যান মো: মোশতাক হাসান, রাজশাহী সিল্ক বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ডের  মহাপরিচালক মু. আবদুল হাকিম, বিজয়পুরের সাদা মাটি নেত্রকোণার জেলা প্রশাসক কাজি মো: আবদুর রহমান, দিনাজপুরের কাটারীভোগ ও বাংলাদেশ কালিজিরা বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউশনের (ব্রি) মহাপরিচালক ড. মো: শাহজাহান কবীর-কে সনদ দেওয়া হয়। একই সঙ্গে পেটেন্ট, ডিজাইন, ট্রেডমার্কস্-এর সনদও প্রদান করা হয় গতকাল। ‘পেটেন্ট’-এ বিজয় ডিজিটালের মোস্তফা জাব্বার ও হিসাব লিমিটেডকে এবং ‘ডিজাইন’ এ বিডি ফুড লি:, জিহান প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজ, আমান প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রিজকে এবং ‘ট্রেডমার্কস’ এ মোহনা টেলিভিশন লি:, এসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রাম, ওয়ালটন হাই-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লি:, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল লি:, গোল্ডেন ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল বিডি, প্রাণ আরএফএল গ্রুপ লি: এবং ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যাল লিমিটেড-কে সনদ দেওয়া হয়।

শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতিষ্ঠান পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস্ অধিদপ্তর “জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নে মেধাসম্পদ” শীর্ষক সেমিনার এবং বিশ্ব মেধাসম্পদ দিবস ২০২১ অনুষ্ঠানে এ সনদ দেওয়া হয়। এতে প্রধান অতিথির ছিলেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে গতকাল বৃহস্পতিবর এ অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়। শিল্পসচিব জাকিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন ডিপিডিটি’র ডেপুটি রেজিস্ট্রার মো: ওবায়দুর রহমান। মূল প্রবন্ধের উপর আলোচনা করেন শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব লুৎফুন নাহার বেগম এবং মো: সানোয়ার হোসেন। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডিপিডিটি’র রেজিস্ট্রার মো: আবদুস সাত্তার।

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, বাংলাদেশ এবং বঙ্গবন্ধু একটা থেকে আরেকটা আলাদা করা যায় না। বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় মেধাসম্পদ ছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি বাংলাদেশের ডিজাইন করেছেন, দিয়েছেন পেটেন্ট। বঙ্গবন্ধুর চেয়ে বড় ডিজাইনার আর কেউ নাই। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু’র স্বপ্ন, ডিজাইন ও নির্দেশনা দিয়েই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। তাঁরই কারণে বাংলাদেশ হলো, একটি জাতি হলো এবং একটি মানচিত্রের জন্ম নিলো। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিল্প প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিশ্ব সৃজনশীলতার প্রতিযোগীতায় এগিয়ে যেতে হলে দেশের সফল গবেষক, প্রযুক্তিবিদ, শিল্পপতি, ব্যবসায়ীসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে মেধাসম্পদ সংরক্ষণ এবং এর যথাযথ ব্যবহারে এগিয়ে আসতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে শিল্পসচিব বলেন, সীমিত সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহারের মাধ্যমেই কেবল একটি দেশের উন্নয়ন করা সম্ভব। এজন্য মেধাসম্পদের যথাযথ ব্যবহারের কোনো বিকল্প নেই। ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের মাধ্যমেই সীমিত সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিত করা সম্ভব। আর এ লক্ষ্যে মেধা সম্পদ সংরক্ষণে অগ্রণী প্রতিষ্ঠান পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস্ অধিদপ্তর তথা শিল্প মন্ত্রণালয় এক সাথে কাজ করে যাচ্ছে। ডিপিডিটি’র রেজিস্ট্রার বলেন, পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস্ অধিদপ্তর মেধাসম্পদ সংরক্ষণ ও সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করছে। স্বাধীনতার পরবর্তী সয়য়ে আমরা ৬ হাজার ২১টি পেটেন্ট সনদ, ১৮ হাজার ৪৯৮টি ডিজাইন সনদ এবং ৬২ হাজার ৬০৯টি ট্রেডমার্কস্ নিবন্ধন সনদ প্রদান করেছি। আমরা বাংলাদেশের ইলিশ, জামদানি, ঢাকাই মসলিম, খিরসাপাত আম, চিনিগুড়া ও কাটারীভোগ চাল, শতরঞ্জি, রাজশাহী সিল্ক এর ভৌগোলিক পণ্যের নিবন্ধন সনদ প্রদান করেছি। এছাড়াও আমরা অনলাইন সেবা চালু করেছি, যার মাধ্যমে সেবাগ্রহীতা এখন ঘরে বসে নিবন্ধন সেবা নিতে পারছে।

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Stay Connected

22,042FansLike
0FollowersFollow
0SubscribersSubscribe
- Advertisement -

Latest Articles